কিভাবে একটি নতুন প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন

কিভাবে একটি নতুন প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন ?

বর্তমান বিনোদন থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের কঠিন ও জটিল সমস্যার সমাধান পাওয়ার জন্য ইউটিউবে ভিডিও খুজে সমাধান করি। জনপ্রিয় পাঁচটি ওয়েবসাইটের মধ্যে YouTube হচ্ছে একটি অন্যতম একটি ওয়েবসাইট। ইউটিউব গুগলের নিজেস্ব সার্ভারের আওতায় থাকায় ইউটিবাররা তাদের ভিডিওগুলো ইইউটিউবে রাখতে স্বাচ্ছন্দবোধ করে।

একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলা কঠিন কিছু না। যদিও এই বিষয়টি সবার জানা আছে। কিন্তু নতুনরা বা যারা প্রফেশনাল ভাবে ইউটিউবে কাজ করতে চায় তাদের জন্য এটি জানা জরুরি। অনেকে ইউটিউবিং করে আয় করছে। বিভিন্ন ধরনের কন্টেন্টের উপর ভিডিও তৈরি করা হয়। তাছাড়াও একটি ভালমানের ইউটিউব চ্যালেন তৈরি করে Google AdSense হতে নূন্যতম স্মার্ট এমাউন্ট ইনকাম করতে পারবেন।

কিভাবে একটি নতুন প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন তা নিচে ধারাবাহিক ভাবে তুলে ধরা হল।
ইইউটিউবে দুই ধরনের চ্যানেল তৈরি করা হয়। একটি পার্সোনাল এবং অন্যটি প্রফেশনাল। প্রফেশনাল চ্যানেল তৈরি করা হয় কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে। ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করার জন্য কিছু ধাপ অনুসরণ করা হয়। তা হলো-

১. গুগল একাউন্টে লগইন
ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য প্রথমে আপনার প্রয়োজন হয় একটি জি-মেইল একাউন্ট। জি-মেইল একাউন্ট না থকলে তৈরি করে নিতে হবে। এরপর একাউন্টটি লগইন করতে হবে।

কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে ব্রাউজার থেকে ইউটিউব ওপেন করতে হবে। তারপর ইউটিউব এ সাইন ইন করতে হবে।মোবাইল ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে প্রথমে মোবাইলে জি-মেইল লগইন করতে হবে। এরপর ইউটিউব অ্যাপস্ থেকে ইউটিউব ওপেন করতে হবে। এবং ইউটিউব এ সাইন ইন করতে হবে।

২. ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেল
জি-মেইল ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করার পর আপনার একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলার কাজ শুরু করতে পারেন।

ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য ইউটিউবের জি-মেইলে ক্লিক করার পর Create Channel এ ক্লিক করতে হবে। এরপর Get Started বাটনটিতে ক্লিক করবেন। এখানে দুটি অপশন আসবে একটিতে আপনি নিজের গুগোল অনুযায়ী নাম চলে আসবে এবং অন্যটিতে আপনি আপনার পছন্দ মত নাম নির্বাচন করতে পারবেন।

এই পেজটির পরে আরেকটি পেজ আসবে সেটিতে আপনার চ্যানেলের নাম, টিক মার্ক দিয়ে ক্রিয়েটে ক্লিক করতে হবে। এখন যে পেজ আসবে সেটিতে আপনার প্রোফাইল ছবি ব্যবহার করতে পারবেন। এই ছবিটি আপনার চ্যানেল নামের পাশে দেখাবে।

এরপর স্ক্রল করে নিচে নেমে আপনি আপনার সোশ্যাল মিডিয়া গুলো যুক্ত করতে পারবেন। সবশেষে সেভ এবং কনটেনিউ দিলে আপনার ব্যক্তিগত চ্যানেল খোলা হয়ে যাবে।

ব্রান্ড ইউটিউব চ্যানেল
পূর্বে কোন ইউটিউব চ্যানেল থাকলে পরে আরেকটি ইউটিউব চ্যানেল খোলার ক্ষেত্রে Brand Account ব্যবহার করে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে। আপনি যদি একাধিক ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান তাহলে প্রথমে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে লগইন করুন। তারপর setting এ ক্লিক করে Add or manage your channel ক্লিক করতে হবে। এখানে আপনার সব চ্যানেল গুলো দেখাবে। ফ্রিলান্সিং এর কাজ সমূহ জানতে এখানে ক্লিক করুন

কিভাবে একটি নতুন প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন

যে পেজ এ চ্যানেল গুলো দেখাবে সেই পেজের বাম পাশে Create a new channel অপমনে ক্লিক করলে নতুন চ্যানেল খোলার অপশন আসবে। সেখানে নতুন চ্যানেলের নাম দিয়ে create এ ক্লিক করলেই ব্রান্ড চ্যানেল তৈরি হয়ে যাবে।

ইউটিউব চ্যানেল আর্ট যুক্ত
ভিজিটরদের কাছে ইউটিউব চ্যানেলটিকে আকর্ষণীয় করার জন্য চ্যানেল আর্ট করা হয়। মূলত এটি প্রোফাইল ছবি, কভার ছবি এবং সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট লিংক সেট করা। Customize Channel এ ক্লিক করে এটি সেট করা হয়।

নতুন পেজটিতে edit অপশনে গিয়ে logo সেট করতে পারবেন। Logo এর সাইজ হবে 800×800 Px. এটি সঠিক মাপ তবে Logo এর সাইজ 98×98 Px এর কম হলে logo আপলোড হবে না।

আপনার চ্যানেলের কভার ছবির জন্য চ্যানেল আর্ট এর ক্ষেত্রে সাইজ হবে 2560×1440 px. এরপর আপনার ইমেইল এড্রেস, দেশ সহ বিভিন্ন সোসিয়াল মিডিয়ার লিংক যুক্ত করতে পারেন। যুক্ত করে নিচের Done বাটনে ক্লিক করলেই সবগুলো অপশন সেভ হয়ে যাবে। বাংদেশে সংস্কৃতির বিভিন্ন ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন|

ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই
আপনার চ্যানেলটিতে ৫ মিনিটের অধিক লম্বা ভিডিও আপলোড করতে চাইলে অবশ্যই আপনার চ্যানেলটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে ভেরিফাই করে নিতে হবে। নতুবা লম্বা সময়ের ভিডিও আপলোড হবে না। ভবিষ্যতে আয় করার জন্য মোবাইল নাম্বার দিয়ে চ্যালেন ভেরিফাই করে নিতে হয়। তাছাড়া চ্যানেলটি মনিটাইজেশন হবে না আর আয়ও হবে না।

চ্যানেলটি ভেরিফাই করার জন্য setting থেকে channel status and features থেকে verify এ ক্লিক করতে হবে। নতুন যে পেজটি আসবে সেই পেজের তথ্য গুলো পূরণ করতে হবে। এরপর submit এ ক্লিক করতে হবে। সেখানে মোবাইল নাম্বার দেয়ার জন্য মোবাইলে একটি কোড আসবে সেটি কররেই চ্যানেলটি ভেরিফাই হয়ে যাবে।

ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করার নিয়ম
ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করার জন্য প্রথমে কন্টেন্ট নির্বাচন করতে হবে। এরপর ঐ কন্টেন্ট এর উপর ভিত্তি করে ভাল মানের একটি ভিডিও তৈরি করতে হবে। ভিডিওটি সুন্দর করে এডিট করে নিতে হবে।

ভিডিও তৈরির ক্ষেত্রে লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে আপনার ভিডিওটি অবশ্যই মজাদার বা শিক্ষনীয় ও ভালোমানের হতে হবে। কোনো ভাবেই ভিডিও নকল করে কিংবা সামান্য পরিবর্তন করে আপলোড করা যাবে না। তাহলে আপনি YouTube এর কাছে কপিরাইট দায়ে দায়বদ্ধ হবেন এবং জরিমানা দিতে হতে পারে।

চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করার জন্য ক্যামেরা আইকনে ক্লিক করে upload video তে ক্লিক করতে হবে। এখন যে পেজ আসবে সে পেজে select files এ ক্লিক করে ভিডিওটি সিলেক্ট করলেই ভিডিওটি আপলোড হয়ে যাবে।

ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা অনেক সহজ। আমরা যদি এই ধাপ গুলো অনুযায়ী চ্যানেল তৈরি করি তাহলে সেটি একটি প্রফেশনাল চ্যানেল তৈরি হবে। চ্যানেলটি ভেরিফাই করে মনিটাইজেমন অন করতে পারি এবং উপার্জন করতে পারি। শুধু এটাই মনে রাখতে হবে যেন কোনো ভিডিও কপি না হয়।

অনলাইন আয়